কুরআন শরিফ নিয়ে মুসলমানদের কি করা উচিত

পবিত্র কুরআন শরিফ নিয়ে কবিতাটি লিখেছিলেন ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ও হিন্দি ভাষার খ্যাতিমান কবি শঙ্কর দয়াল শর্মা। কবিতাটি পড়ে আমি বিস্মিত হয়েছি। লেখার প্রায় চার দশক পরেও এই কবিতার প্রাসঙ্গিকতা তো কমেই নি, বরং বেড়েছে বলেই মনে হয়। হায়! আমাদের মুসলমানদের কি করা উচিত ছিলো আর আমরা কি করছি। বোঝার সুবিধার্থে মূল কবিতার সাথে বাংলা তর্জমা দিলাম:

কুরআন শরিফ

আমল কি কিতাব থি,
দুয়া কি কিতাব বনা দিয়া।

বাংলা:
আমল করার কিতাব ছিলো,
দোয়ার কিতাব বানিয়ে দিয়েছো।

সমঝ্নে কি কিতাব থি,
পড়নে কা কিতাব বনা দিয়া।

বাংলা:
অনুধাবন করার কিতাব ছিলো,
পাঠের কিতাব বানিয়ে দিয়েছো।

জিন্দাওঁ কা দস্তুর থা,
মুর্দাওঁ কা মনশুর বনা দিয়া।

বাংলা:
জীবিতদের জীবনবিধান ছিলো,
মৃতদের ইশতাহার বানিয়ে দিয়েছো।

জো ইলম্ কি কিতাব থি
উসে লা-ইলমোঁ কে হাথ থমা দিয়া।

বাংলা:
যেটা ছিলো জ্ঞানের কিতাব,
মূর্খদের হাতে ছেড়ে দিয়েছো।

তশখীর-এ-কয়েনাৎ কা দর্স দেনে আয়ি থি,
সির্ফ মদ্রাসোঁ কা নিসাব বনা দিয়া।

বাংলা:
সৃষ্টির জ্ঞান দিতে এসেছিলো এটা,
স্রেফ মাদ্রাসার পাঠ্য বানিয়ে দিয়েছো।

মুর্দা কওমোঁ কো জিন্দা করনে আয়ি থি,
মুর্দোঁ কো বখশ্ওয়ানে পের লগা দিয়া।

বাংলা:
মৃত জাতিদের বাঁচিয়ে তুলতে এসেছিলো এটা,
মৃতের জন্যে দোয়ার কাজে লাগিয়ে দিয়েছো।

অয় মুসলমানোঁ, ইয়ে তুম নে ক্যা কিয়া?

বাংলা:
হে মুসলমানেরা, এ তোমরা কী করেছো?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *